বৃহস্পতিবার   ২১ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৬ ১৪২৬   ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

আজকের পটুয়াখালী
ব্রেকিং:
সারাদেশের পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন লিখতে হবে স্পষ্ট অক্ষরে: হাইকোর্ট আজ সশস্ত্র বাহিনী দিবস শাহজালালে পৌঁছেছে পাকিস্তানের ৮২ টন পেঁয়াজ ক্রিকেটের সঙ্গে টেনিসও এগিয়ে যাচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী পটুয়াখালীতে বাস চলাচল শুরু রিফাত হত্যা : চার্জ গঠন ২৮ নভেম্বর র‌্যাব-৮ এর অভিযানে শীর্ষ সন্ত্রাসী গ্রেফতার ৭ ডিসেম্বর বিচারবিভাগীয় সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী বরিশাল বোর্ডে এসএসসিতে বৃত্তি পাচ্ছেন ১৪১৭ শিক্ষার্থী কবি সুফিয়া কামালের মৃত্যুবার্ষিকী আজ বরিশাল বোর্ডে এসএসসির ফরম পূরণে সময় বাড়লো জাতীয় অর্থনীতিতে নারীর অবদান সবচেয়ে বেশি: পলক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ট্রাক মালিকদের ফের বৈঠক আজ চক্রান্তকারীদের আইনের আওতায় আনা হবে: ওবায়দুল কাদের দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী লবণের দাম বাড়ালে জেল-জরিমানা : বাণিজ্যমন্ত্রী লবণ নিয়ে গুজবে কান দিবেন না: শিল্প মন্ত্রণালয় গলাচিপায় যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত ২০২১ সালের মধ্যে ১০০০ উদ্যোক্তা তৈরিতে সহায়তা দেবে সরকার
১৪৯২

কলাপাড়ায় নৌকার ক্যাম্প,বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাংচুর

পটুয়াখালী প্রতিনিধি ॥

প্রকাশিত: ২৩ ডিসেম্বর ২০১৮  

অনলাইন ডেস্ক// পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় নৌকা মার্কার নির্বাচনী ক্যাম্পের পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু ও প্রধান মন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর করা হয়েছে। এ সময় একটি মোটরসাইকেলও ভেঙে দেওয়া হয়। আহত হয় ১০ থেকে ১২ জন।
শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে উপজেলার নীলগঞ্জ ইউনিয়নের মস্তফাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনায় মারাত্মক আহত অবস্থায় হুমায়ুন কবিরকে কলাপাড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আরো আহত হয়েছেন, সোবাহান রাঢ়ী, আলমগীর হোসেন, আইয়ুব আলী ফরাজী, নাসির হাওলাদার। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।
এ ঘটনায় ৪৪ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরো ৪০-৫০ জনকে আসামি করে মামলা হয়েছে। রাতেই ধানের শীষের সমর্থক মো. মাসুম এবং মিলন মৃধা, হাসান আকন, কাদের খান, মোকছেদ হাওলাদারকে আটক করা হয়।
হামলার শিকার মো. আলমগীর জানায়, সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে প্রতিদিনের নৌকার সমর্থনে মিছিল করা হয় মস্তফাপুর বাজারে। এ সময় সামসুন্নাহার দাখিল মাদ্রাসার ভিতর থেকে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। এ সময় বিএনপি নেতা আলম হাওলাদারের নেতৃত্বে আলমগীর মৃধা, মনির মৃধা, ইউনুচ খান, মুজাম্মেল, রেজাউল খান, মহিব উদ্দিনসহ ৩০/৩৫ জন নির্বাচনী অফিসে ভাঙচুর চালায়।
তবে বিএনপির প্রার্থী এবিএম মোশারফ হোসেন বলেছেন, ‘দেশের বর্তমান যে পরিস্থিতি তাতে বিএনপির নেতা-কর্মীদের ভাঙচুর করা অসম্ভব। এটি সাজানো নাটক। নির্বাচনে বিএনপি যাতে মাঠে না থাকতে পারে তার জন্য পরিকল্পিত এ ঘটনা সাজানো হয়েছে।’
কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও নির্বাচনী পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব এস এম রাকিবুল আহসান বলেন, ‘বিএনপি রাজনৈতিক চরিত্র নাই। মিথ্যা ছাড়া তাদের কোন বক্তব্য নাই।’
কলাপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় ৪৪ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরো ৪০/৫০ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। ইতিমধ্যে পাঁচ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর