• সোমবার   ১৬ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২ ১৪২৯

  • || ১৩ শাওয়াল ১৪৪৩

আজকের পটুয়াখালী
ব্রেকিং:
উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সাশ্রয় করুন: প্রধানমন্ত্রী সবাই স্বাধীনভাবে সরকারের সমালোচনা করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী ‌ঢাকায় বসে সমালোচনা না করে গ্রামে ঘুরে আসুন বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছে ফেলতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী আমিরাতের নতুন প্রেসিডেন্টকে রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন শেখ হাসিনাকে স্পেনের সরকার প্রধানের শুভেচ্ছা পি কে হালদার গ্রেফতার নানামুখী ষড়যন্ত্র হচ্ছে, সতর্ক থাকতে বললেন প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশকে সমর্থন দেওয়ার প্রত্যয় এডিবির ভাইস প্রেসিডেন্টের আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক আমিরাতের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের চার বছর পূর্তি আজ নারী খেলোয়াড়দের আরও সুযোগ দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ‘খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক চর্চা একটি জাতির জন্য অপরিহার্য’ ফ্ল্যাটে বাস করে শিশুরা ফার্মের মুরগির মতো হয়ে যাচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার দেয়া হচ্ছে ৮৫ ক্রীড়া ব্যক্তিত্বকে রাষ্ট্রপতির সাজেক সফর স্থগিত একনেকে ৫ হাজার ৮২৫ কোটি টাকার ১১ প্রকল্প অনুমোদন যুক্তরাষ্ট্র থেকে বর্ধিত বিনিয়োগ চান প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি করতে প্রস্তুত বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী

শ্রীলঙ্কার সঙ্গে বাংলাদেশের তুলনা করা মূর্খতা ছাড়া কিছুই নয়

আজকের পটুয়াখালী

প্রকাশিত: ১৪ মে ২০২২  

শ্রীলঙ্কার সাম্প্রতিক রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক বিপর্যয় দেখে দেশের কথিত বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে- উন্নয়নের নামে বাংলাদেশও শ্রীলঙ্কার পরিস্থিতির দিকে যাচ্ছে। কিন্তু বাস্তবতা হলো- শ্রীলঙ্কার চেয়ে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি অনেক শক্তিশালী।

শ্রীলঙ্কার রাজস্ব আয়ের প্রধান খাত- পর্যটনশিল্প। ২০১৯ সালে কলম্বোয় তিনটি হোটেল ও তিনটি গির্জায় বোমা বিস্ফোরণের পর পর্যটন খাতে ধ্বস নামে। ফলে চাপ বাড়ে রির্জাভের উপর। আর করোনার দুই বছরে পর্যটকদের ভ্রমণ বন্ধ থাকায় এ খাত থেকে আয় হয়নি দেশটির। কিন্তু পর্যটক আকৃষ্ট করতে বিভিন্ন প্রকল্পে পূর্বে নেওয়া বিদেশি ঋণের কিস্তি ঠিকই পরিশোধ করতে হয়েছে।

রপ্তানি আয়, রেমিট্যান্স এবং শিল্প উৎপাদনেও দূর্বল শ্রীলঙ্কা। মূল্য সংযোজন কর ১৫ থেকে কমিয়ে ৮ শতাংশ ধার্য করা, ‘জাতীয় উন্নয়ন কর’ এবং ‘যত আয় তত কর’ ব্যবস্থা বিলুপ্ত করায় দেশটির রাজস্ব আয় নেমে আসে তলানিতে। পাশাপাশি কৃষিতে রাসায়নিকের ব্যবহার নিষিদ্ধ করায় ফসল উৎপাদন নেমে আসে শূণ্যের কোটায়। সব মিলিয়ে কিছু ভুল পরিকল্পনা আর করোনা মহামারিতে এই দশা হয়েছে দেশটির।

অন্যদিকে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার অর্থনীতির গতিপ্রকৃতি ভিন্ন।করোনার দুই বছরে বাংলাদেশের মতো বেশির ভাগ দেশ টিকে গেছে কৃষি খাতের কারণে। উৎপাদন ভালো হওয়ায় খাদ্যসংকট হয়নি। আর আমাদের রফতানি আয় ও রেমিটেন্সের পরিমাণ দিন দিন বাড়ছে।

আশা করা হচ্ছে, পণ্য রপ্তানি চলতি অর্থবছর শেষে ৫ হাজার কোটি ডলারের মাইলফলকে পৌঁছবে।

শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২ বিলিয়ন ডলারেরও কম। আর বাংলাদেশের ৪৪ দশমিক ৪০ বিলিয়ন ডলার। বাংলাদেশের মাথাপিছু ঋণের পরিমাণ ২৯২.১১ ডলার আর শ্রীলঙ্কার ১৬৫০ ডলার।

অর্থনীতি বিশ্লেষকরা বলছেন, বেদনাদায়ক বিষয় হলো, একটি নির্দিষ্ট মহল আমাদের এই সুন্দর দক্ষিণ এশিয়া বন্ধু রাষ্ট্রের দুর্দশাকে পুঁজি করে বাংলাদেশের সম্ভাবনাকেও প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাইছে। আমাদের সামষ্টিক অর্থনীতির শক্তিমত্তা নিয়ে প্রশ্নের অবকাশ যে নেই সে কথা তো মানতেই হবে। বিগত ৫০ বছরে বাংলাদেশ ধ্বংসস্তূপ থেকে সমৃদ্ধির পথেই হেঁটে চলেছে। বিশ্ব আর্থিক মন্দা এবং সর্বশেষ করোনাকাল পেরিয়ে সফলতার সঙ্গে সম্ভাবনার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার ক্ষেত্রে সম্ভাবনা উবে গেছে। চ্যালেঞ্জ তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে। তাই শ্রীলঙ্কার সাথে বাংলাদেশের তুলনা করা মূর্খতা ছাড়া কিছুই নয়।