• সোমবার   ১৫ আগস্ট ২০২২ ||

  • শ্রাবণ ৩১ ১৪২৯

  • || ১৬ মুহররম ১৪৪৪

আজকের পটুয়াখালী
ব্রেকিং:
জাতির পিতার মৃত্যু নেই প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে বঙ্গবন্ধু আমাদের রোল মডেল শোক দিবসে বঙ্গভবনে বিশেষ দোয়ার আয়োজন রাষ্ট্রপতির টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর বিষয়ে পরিষ্কার ব্যাখ্যার নির্দেশ বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত মানবাধিকার কমিশনকে যথাযথভাবে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ রাষ্ট্রপতির ৪০০তম ওয়ানডে খেলার অপেক্ষায় বাংলাদেশ জ্বালানি নিরাপত্তা: বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার অবদান রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে বঙ্গমাতার মনোভাব প্রতিফলিত হয়েছে বঙ্গমাতার সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা স্বাধীনতার সংগ্রামে বঙ্গবন্ধুর সারথি ছিলেন আমার মা: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গমাতা কঠিন দিনগুলোতে ছিলেন দৃঢ় ও অবিচল: রাষ্ট্রপতি ফজিলাতুন নেছা মুজিব দৃঢ়চেতা-বলিষ্ঠ চরিত্রের অধিকারী ছিলেন বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মবার্ষিকী আজ বাংলাদেশে সহায়তা অব্যাহত রাখবে চীন: ওয়াং ই চীনে ৯৯ শতাংশ পণ্যের শুল্কমুক্ত সুবিধা পাবে বাংলাদেশ মা ও শিশু স্বাস্থ্য সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছি মায়ের দুধ শিশুর সর্বোত্তম খাবার: রাষ্ট্রপতি শেখ কামাল ছিলেন ক্রীড়া ও সংস্কৃতিমনা সুকুমার মনোবৃত্তির মানুষ

পদ হারানোর পর ষড়যন্ত্রে নামেন ড. ইউনূস

আজকের পটুয়াখালী

প্রকাশিত: ২২ জুন ২০২২  

তদবির করেও গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ টেকাতে না পেরে পদ্মা সেতুর অর্থায়ন থেকে বিশ্বব্যাংকে সরাতে ষড়যন্ত্র করেন ড. ইউনূস। তৎকালীন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনের সঙ্গে যোগাযোগ এবং ক্লিনটন ফাউন্ডেশনে অর্থদানসহ সে সময়ের ইউনূসের তৎপরতা বিশ্লেষণ করে এমন তথ্য দিয়েছেন বিশ্লেষকরা। গ্রামীণ ব্যাংকের পদ হারানোর পর পদ্মা সেতুবিরোধী ষড়যন্ত্রে নামেন ইউনূস, সফলও হন তিনি, জানান বিশ্লেষকরা।

১৯৮৪ সালে র‌্যামন ম্যাগসেসে পুরস্কারের মাধ্যমে লাইমলাইটে আসেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস। বাড়তে থাকে সমাজের নানা স্তরের সঙ্গে তার সম্পর্ক। এর সুবাদে দেশে মোবাইল ফোন কোম্পানি প্রতিষ্ঠার ধারণার জনক ইকবাল জেড কাদিরের সঙ্গে যুক্ত হন তিনি। ইকবাল কাদিরের আইডিয়া নিজের প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সম্প্রসারণের জন্য ড.ইউনূস সহায়তা নেন ৯৬ মেয়াদের আওয়ামী লীগ সরকারের।

ইকবাল কাদিরের মস্তিস্কপ্রসূত ধারণা গ্রামীণ টেলিকমকে তৃণমূলে ছড়িয়ে দিতে নরওয়ের টেলিনরের বিনিয়োগ আনেন তিনি। এরপর দেশটির সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা গড়ে উঠে ইউনূসের। নোবেল পাওয়ার দুই বছরের মাথায় প্রতারণার অভিযোগে সেই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তিক্ততা বাড়ে তার, যা প্রচারিত হয় বিদেশি গণমাধ্যমে। কিন্তু সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ক্ষমতায় থাকায় ইউনূসের সেই খবর গুরুত্ব পায়নি দেশিয় কোনো গণমাধ্যমে। কেননা দেশি কিছু গণমাধ্যমগুলো তখন ব্যস্ত ছিল বিরাজনীতিকরণ প্রক্রিয়ায়।

২০০৭ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘নাগরিক শক্তি’ নামে দল গঠন করে নবম সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে চান ড. ইউনূস।

ওই সময় ইউনূস রয়টার্সকে জানান, রাজনীতির বাইরে থাকার আর কোনো পথ নেই। দলের সমর্থনে গ্রামপর্যায়ে কমিটি ও প্রচার চালানোর পরিকল্পনার কথাও জানান।

উইকিলিকসের ফাঁস হওয়া একটি তারবার্তা বলছে, রাজনৈতিক দল গঠনের অভিলাষে সে সময় কলকাতায় নিযুক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উপরাষ্ট্রদূতের সঙ্গেও কথা বলেন তিনি।

ড. ইউনূস এমন এক সময় রাজনীতি আসার ঘোষণা দেন যখন দেশের রাজনীতি থেকে দুই নেত্রীকে মাইনাস করার পরিকল্পনা করছে ওয়ান ইলেভেন সরকার। ঠিক তখনই সামরিক কর্তাদের পৃষ্ঠপোষকতায় রাজনৈতিক দল গঠনের উদ্যোগ নেন তিনি।

ড. ইউনুসের রাজনীতিতে আসার ঘোষণা নিয়ে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, হঠাৎ করে একজন ব্যক্তির রাজনীতিতে আসা ভয়ংকর হতে পারে এবং তার উদ্দেশ্য যথেষ্ট সন্দেহজনক।

যদিও বিএনপি ড. ইউনূসের রাজনীতিতে আসাকে স্বাগত জানাই। সে সময় দলটির আইনমন্ত্রী মওদুদ আহমদ বলেছিলেন, ড. ইউনূসকে রাজনীতিতে স্বাগত জানায়, আমি তার সাফল্যকামনা করি। তবে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি রাজনীতিতে না আসাই তার জন্য ভালো হবে।

শেখ হাসিনা-বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারের পর রাজনীতির মাঠ খালি করে ড. ইউনূসকে প্রতিষ্ঠার চক্রান্ত শেষ পর্যন্ত আলোর মুখ দেখেনি।

গ্রামীণ ব্যাংকের বেতনভুক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন ড.মুহাম্মদ ইউনূস। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে দাতাদের দেয়া অর্থ এক খাত থেকে অন্য খাতে সরিয়ে ফেলার। এ বিষয়ে নরওয়ের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে একটি তথ্যচিত্রও প্রচারিত হয়। এ ছাড়া আইন অনুযায়ী ৬০ বছর বয়সে পদ ছাড়ার কথা তার। কিন্তু বেআইনিভাবে ৭১ বছর পর্যন্ত এমডির দায়িত্ব পালন করেন তিনি। পরে বাংলাদেশ ব্যাংক তাকে অব্যহতি দিলে হাইকোর্টে যান ইউনূস। সেখানেও হেরে যান তিনি।

ইংরেজি দৈনিক দ্য নিউ এইজের সে সময়ের এক রিপোর্টে বলা হয়, ড. ইউনূসকে অপসারণের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকলে আমেরিকার সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন এপ্রিল মাসে বাংলাদেশে আসার সিদ্ধান্ত পাল্টাতে পারে।

মার্কিন বার্তা সংস্থা এপির তথ্য বলছে, হিলারি ক্লিনটন পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালে ড. ইউনূস তার সঙ্গে তিনবার দেখা করেছেন এবং কয়েকবার টেলিফোনে কথা বলেছেন। গ্রামীণ ব্যাংকের দায়িত্বে থাকতে হিলারির সাহায্য চেয়েছিলেন। হিলারি তাকে সাহায্য করার পন্থা খুঁজে বের করতে সহকারীদের নির্দেশ দিয়েছিলেন। হিলারিকে খুশি করতে তার ফাউন্ডেশনে ২০ কোটি টাকা অনুদানও দেন ইউনূস।

ড. ইউনূসকাণ্ডের দুই মাস আগে পদ্মা সেতুতে অর্থায়নে ১২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণচুক্তি করে বিশ্বব্যাংক। পদ হারানো ইউনূস ঋণচুক্তি বাতিলে শুরু করেন তদবির। মার্কিন দফতর থেকে আসতে থাকে চাপ।

আমেরিকা চায় ড. ইউনূসকে যেন নিজ গতিতে মর্যাদার সঙ্গে তার উত্তরাধিকারীর কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করার সুযোগ দেয়া হয়।

একপর্যায়ে দুর্নীতির কল্পিত অভিযোগ করতে থাকে বিশ্বব্যাংক। যদিও কোনো অভিযোগের সপক্ষে প্রমাণ দিতে পারেনি তারা। ২০১২ সালের জুনে এসে ঋণচুক্তি বাতিল করে বিশ্বব্যাংকসহ দাতা সংস্থাগুলো।

বিশ্লেষকরা বলছেন, গ্রামীণ ব্যাংকের পদ হারানোর পর পদ্মা সেতুবিরোধী ষড়যন্ত্রে নামেন ইউনূস। সফলও হন তিনি। তার কারণে ঋণচুক্তি বাতিল করে বিশ্বব্যাংক। ৭ বছর পিছিয়ে যায় পদ্মা সেতুর কাজ। অথচ বিশ্বব্যাংক ঋণচুক্তি বাতিল না করলে ২০১৫ সালে উদ্বোধন হতো স্বপ্নের পদ্মা সেতু।