• মঙ্গলবার   ১৭ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩ ১৪২৯

  • || ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩

আজকের পটুয়াখালী
ব্রেকিং:
নিত্যপণ্যের দাম কেন চড়া, জানালেন প্রধানমন্ত্রী স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: শেখ হাসিনা দেশের মানুষের শেষ ভরসাস্থল শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির নিরাপদ আশ্রয়স্থল শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ইতিহাসে মাইলফলক: রাষ্ট্রপতি চার দশকেরও বেশি সময় শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে আ.লীগ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সাশ্রয় করুন: প্রধানমন্ত্রী সবাই স্বাধীনভাবে সরকারের সমালোচনা করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী ‌ঢাকায় বসে সমালোচনা না করে গ্রামে ঘুরে আসুন বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছে ফেলতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী আমিরাতের নতুন প্রেসিডেন্টকে রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন শেখ হাসিনাকে স্পেনের সরকার প্রধানের শুভেচ্ছা পি কে হালদার গ্রেফতার নানামুখী ষড়যন্ত্র হচ্ছে, সতর্ক থাকতে বললেন প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশকে সমর্থন দেওয়ার প্রত্যয় এডিবির ভাইস প্রেসিডেন্টের আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক আমিরাতের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের চার বছর পূর্তি আজ নারী খেলোয়াড়দের আরও সুযোগ দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ‘খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক চর্চা একটি জাতির জন্য অপরিহার্য’ ফ্ল্যাটে বাস করে শিশুরা ফার্মের মুরগির মতো হয়ে যাচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

শিশুর বৃদ্ধি ও বিকাশে সহায়ক যেসব কাজ

আজকের পটুয়াখালী

প্রকাশিত: ২৫ জানুয়ারি ২০২২  

যেসব বাবা মায়েরা সন্তানদের স্কুল এবং বাড়ির মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখেন, তারা বেশিরভাগই সন্তানদের অর্গানাইজড স্পোর্টস এবং শারীরিক কসরতের মধ্যে রাখতে চান। তারা ভাবেন এর মাধ্যমে শিশুর বৃদ্ধি ও বিকাশ সম্ভব। কিন্তু অর্গানাইজড কসরতের মধ্যে শিশুরা আনন্দ খুঁজে পায়না। শিশুদেরকে নিজেদের মতো করে খেলার সুযোগ দেয়া উচিত। শিশু যদি জোরে জোরে শ্বাস ফেলতে ফেলতে ঘর্মাক্ত অবস্থায় বাড়ি না ফিরে, তবে বুঝতে হবে তাদের পর্যাপ্ত শারীরিক কসরৎ হচ্ছেনা।

এ কারণেই বাচ্চাদের নিজের মতো করে বাইরে খেলাধুলা বা সাইকেল চালানোয় উৎসাহিত করা প্রয়োজন। অন্তত এক ঘন্টা বাচ্চাদের অ্যারোবিক অ্যাক্টিভিটি দরকার বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। অন্যান্য সমীক্ষা থেকেও জানা গিয়েছে, দিনে কুড়ি থেকে ত্রিশ মিনিট বাচ্চাদের অতিরিক্ত থেকে মাঝারি পরিমাণে এক্সারসাইজ দরকার।

এতে তাদের স্বাস্থ্য এবং সুস্থতা বজায় থাকবে। সেই সঙ্গে গড়ে তুলুন সঠিক খাদ্যভ্যাস। সূর্যের আলো এবং সুষম খাদ্য দুই মিলে আপনার শিশুর বৃদ্ধি ও বিকাশে সাহায্য করে। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক সূর্যের আলো ও সুষম খাদ্যের উপকারিতা-

সুষম খাদ্যভ্যাস 

খেলাধুলাই শুধু নয় বাচ্চাদের খাবারের প্রতিও অভিভাবকদের অতিরিক্ত মনোযোগী হওয়া প্রয়োজন। ১০ থেকে ১৭ বছর সময়ের মধ্যে সর্বাঙ্গীণ বৃদ্ধি বিকাশ হয়। তাই স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার অভ্যেস সন্তানের মধ্যে গড়ে তোলা প্রয়োজন। সুষম খাদ্যগুলো হলো-

>> প্রক্রিয়াজাত খাবার এবং জাঙ্ক ফুড যত কম খাওয়া যায় ততই ভালো। অতিরিক্ত এ ধরনের খাবার থেকে ওজন বেড়ে যাওয়ার সমস্যা হতে পারে।

>> প্রচুর পরিমাণে মৌসুমী এবং টাটকা ফল সন্তানের খাদ্য তালিকায় রাখুন। এতে প্রয়োজনীয় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং খনিজ দ্রব্য তার শরীরে প্রবেশ করবে।

>> নিয়মিত বাদাম এবং ড্রাই ফুড খাওয়ার অভ্যাস করুন। এতে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে। ওয়ালনাট আমন্ড মস্তিষ্কের বিকাশেও সাহায্য করে।

>> প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার সন্তানকে দিন এর ফলে হাড় শক্ত হবে দাঁতের গঠন ভালো হবে। ভিটামিন ডি-এর অন্যতম একটি উৎস হলো মাশরুম এবং কমলালেবু।