• মঙ্গলবার   ১৭ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩ ১৪২৯

  • || ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩

আজকের পটুয়াখালী
ব্রেকিং:
নিত্যপণ্যের দাম কেন চড়া, জানালেন প্রধানমন্ত্রী স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: শেখ হাসিনা দেশের মানুষের শেষ ভরসাস্থল শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির নিরাপদ আশ্রয়স্থল শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ইতিহাসে মাইলফলক: রাষ্ট্রপতি চার দশকেরও বেশি সময় শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে আ.লীগ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সাশ্রয় করুন: প্রধানমন্ত্রী সবাই স্বাধীনভাবে সরকারের সমালোচনা করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী ‌ঢাকায় বসে সমালোচনা না করে গ্রামে ঘুরে আসুন বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ মুছে ফেলতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী আমিরাতের নতুন প্রেসিডেন্টকে রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন শেখ হাসিনাকে স্পেনের সরকার প্রধানের শুভেচ্ছা পি কে হালদার গ্রেফতার নানামুখী ষড়যন্ত্র হচ্ছে, সতর্ক থাকতে বললেন প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশকে সমর্থন দেওয়ার প্রত্যয় এডিবির ভাইস প্রেসিডেন্টের আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক আমিরাতের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের চার বছর পূর্তি আজ নারী খেলোয়াড়দের আরও সুযোগ দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ‘খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক চর্চা একটি জাতির জন্য অপরিহার্য’ ফ্ল্যাটে বাস করে শিশুরা ফার্মের মুরগির মতো হয়ে যাচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

‘হত্যাকারীদের ফাঁসি হলেই আমার ছেলের আত্মা শান্তি পাবে’

আজকের পটুয়াখালী

প্রকাশিত: ২২ আগস্ট ২০২০  

পটুয়াখালী প্রতিনিধিঃ
একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত পটুয়াখালীর দশমিনার আলীপুরা ইউনিয়নের পশ্চিম আলীপুরা গ্রামের নিহত মামুন মৃধার কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে আসেন আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী আখম জাহাঙ্গীর হোসাইন। শুক্রবার সকালে গলাচিপা ও দশমিনা এলাকার দলীয় নেতাকর্মীসহ এলাকাবাসীকে সঙ্গে নিয়ে আখম জাহাঙ্গীর হোসাইন গ্রেনেড হামলায় নিহত মামুন মৃধার সমাধিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান। এ সময় মামুন মৃধার আত্মার শান্তি কামনায় দোয়া মোনাজাত করা হয়। পরে মামুন মৃধার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ একান্তে কথা বলেন আখম জাহাঙ্গীর হোসাইন। এসময় ফুল দিতে আসা সাবেক এ প্রতিমন্ত্রীকে কাছে পেয়ে নিহত মামুনের বাবা মোতালেব মৃধা আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। তাকে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। 

আখম জাহাঙ্গীর হোসাইনকে উদ্দেশ্য করে বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনাকে বলবেন হত্যাকারীদের ফাঁসি হলেই কেবল আমার ছেলের আত্মা শান্তি পাবে। আমার পরিবার শান্তনা পাবে। 

আখম জাহাঙ্গীর হোসাইন এ সময় মোতালেব মৃধাকে আশ্বস্ত করে বলেন, জননেত্রী নিরলসভাবে অনেক কিছু করার চেষ্টা করছেন। আশা করা যায় শিগগির পৈচাশিক এ হত্যাকান্ডের রায় কার্যকর হবে। জননেত্রী আগেও যেমন আপনাদের পাশে ছিলেন, আগামীতেও তিনি আপনাদের পাশে থাকবেন।

উল্লেখ্য মোতালেব মৃধার ছেলে মামুন মৃধা ঢাকায় কবি নজরুল সরকারী কলেজে অনার্সের ছাত্র ছিলেন। একুশ বছর বয়সী ছাত্রলীগ কর্মী মামুন মৃধা আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনার বক্তব্য সামনে থেকে শুনতে ওইদিন জনসভায় গিয়েছিলেন। গ্রেনেড হামলায় নিহত হন। 

এ উপলক্ষে স্থানীয় আওয়ামীলীগ মামুন মৃধার কবরের পাশে রাস্তার ওপর শোকসভা ও মিলাদের আয়োজন করে। আলী হোসেন মৃধার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শোকসভায় আখম জাহাঙ্গীর হোসাইন ছাড়াও গলাচিপা উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি অধ্যাপক সন্তোষ কুমার দে, দশমিনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ লিটনসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। 
শোক সভায় মামুন মৃধার লাশ উদ্ধারের বর্ণনা দিয়ে আখম জাহাঙ্গীর হোসাইন বলেন, ওইদিন হাসপাতালে লাশের স্তুপ জমেছিল। অনেক লাশ শনাক্ত করা যাচ্ছিল না। মামুন মৃধার পকেটে একটি নাম ঠিকানা লেখা চিরকূট পাওয়া যায়। যা দিয়ে তাকে শনাক্ত করা হয়। পরেরদিন অনেক কষ্টে তার লাশ গ্রামের বাড়িতে পৌছে দেয়া হয়। 

মামুনের বাবা মোতালেব মৃধা বলেন,‘আমার বুকের ধন নিরাপরাধ ছেলে মামুনসহ আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতাকর্মীদের যারা প্রকাশ্য জনসভায় গ্রেনেড হামলা চালিয়ে নির্মম ভাবে হত্যা করেছে, অবিলম্বে তাদের ফাঁসির রায় কার্যকর করা হোক, এটা আমার এ মুহুর্তের একমাত্র দাবি। এর বেশি কিছু আর চাই না। ষোল বছর ধরে অপেক্ষা করছি বিচার পাওয়ার আশায়। বুকের মধ্যে শোকের পাথর বয়ে বেড়াচ্ছি। আদালতের বিচার ও রায় হয়েছে। এখন সে রায় কার্যকর চাই। নিজ চোখে হত্যাকারীদের ফাঁসি দেখতে চাই। এর মধ্য দিয়ে মামুনের আত্মার শান্তি চাই।’