• বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৯ ১৪৩১

  • || ১৭ মুহররম ১৪৪৬

আজকের পটুয়াখালী
ব্রেকিং:
তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ২১ জুলাই স্পেন যাবেন প্রধানমন্ত্রী আমার বিশ্বাস শিক্ষার্থীরা আদালতে ন্যায়বিচারই পাবে: প্রধানমন্ত্রী কোটা সংস্কার আন্দোলনে প্রাণহানি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা হবে মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী পবিত্র আশুরা মুসলিম উম্মার জন্য তাৎপর্যময় ও শোকের দিন আশুরার মর্মবাণী ধারণ করে সমাজে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার আহ্বান মুসলিম সম্প্রদায়ের উচিত গাজায় গণহত্যার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়া নিজেদের রাজাকার বলতে তাদের লজ্জাও করে না : প্রধানমন্ত্রী দুঃখ লাগছে, রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও বলে তারা রাজাকার শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ ‘চীন কিছু দেয়নি, ভারতের সঙ্গে গোলামি চুক্তি’ বলা মানসিক অসুস্থতা দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করে না দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী : প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ সরকার ব্যবসাবান্ধব সরকার ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে সরকার যথাযথ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিশ্বমানের খেলোয়াড় তৈরি করুন চীন সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী টেকসই উন্নয়নে পরিকল্পিত ও দক্ষ জনসংখ্যার গুরুত্ব অপরিসীম বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগ করতে চায় চীন: শি জিনপিং চীন সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

হিজরি সালের সূচনা যেভাবে হয়

আজকের পটুয়াখালী

প্রকাশিত: ৯ জুলাই ২০২৪  

হিজরি সাল গণনা করা হয় আল্লাহর রাসুলের (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) হিজরতের বছর থেকে। এটি চন্দ্রবর্ষ বা চাঁদের হিসাব অনুযায়ী গণনা করা হয়। নতুন চাঁদ উঠলে হিজরি ক্যালেন্ডারের নতুন মাস শুরু হয়। হিজরি ক্যালেন্ডারের প্রথম মাস মহররম, শেষ মাস জিলহজ। ধারাবাহিকভাবে হিজরি ক্যালেন্ডারের মাসগুলো হলো, ১. মহররম, ২. সফর, ৩. রবিউল আউয়াল, ৪. রবিউস সানি, ৫. জমাদিউল আউয়াল, ৬. জমাদিউস সানি, ৭. রজব, ৮. শাবান, ৯. রমজান, ১০. শাওয়াল, ১১. জিলকদ, ১২. জিলহজ।

আল্লাহর রাসুলের (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) যুগে চন্দ্রমাসগুলোর হিসাব রাখা হলেও মুসলমানদের কোনো সাল ছিল না। হজরত ওমরের (রা.) খেলাফতকালে আল্লাহর রাসুলের হিজরতের বছরকে সূচনাবর্ষ ধরে হিজরি সাল গণনা করা শুরু হয়।

হজরত ওমর (রা.) কেন হিজরি সাল প্রবর্তনের প্রয়োজন অনুভব করেছিলেন এ ব্যাপারে কয়েকটি বর্ণনা পাওয়া যায়। ইবনে হাজার আসকালানি (রহ.) ফাতহুল বারিতে লিখেছেন, হজরত ওমরের (রা.) হিজরি সাল প্রবর্তনের বেশ কিছু কারণ উল্লেখ করা হয়। এর মধ্যে একটি হলো যা আবু নুয়াইম তার ইতিহাসগ্রন্থে লিখেছেন যে, সাহাবি আবু মুসা আশআরি (রা.) ওমরের কাছে একটি চিঠিতে লেখেন, আপনার কাছ থেকে আমাদের কাছে অনেক চিঠি আসে, সেগুলোতে কোনো তারিখ থাকে না। তখন ওমর (রা.) পরামর্শের জন্য সবাইকে একত্র করেন। তাদের কেউ কেউ বলেন আল্লাহর রাসুলের (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) নবুয়ত লাভের বছরটিকে মুসলমানদের সালের সূচনাবর্ষ ধরা হোক, কেউ বলেন হিজরতের বছরটিকে সূচনাবর্ষ ধরা হোক। তখন ওমর (রা.) বলেন, হিজরতই হক ও বাতিলকে পৃথক করে দিয়েছে। তাই হিজরতের বছর থেকেই আমাদের সাল গণনা হোক। তখন ছিল সতের হিজরি অর্থাৎ আল্লাহর রাসুলের (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) হিজরতের পরবর্তী ১৭তম বছর।

হিজরতের বছর থেকে সাল গণনার ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছার পর ক্যালেন্ডারের প্রথম মাস কোনটি হবে সে বিষয়ে পরামর্শ হয়। কেউ কেউ রমজানকে প্রথম মাস ধরতে বলেন। ওমর (রা.) বলেন, মহররম প্রথম মাস হতে পারে যে মাসে মানুষ হজ থেকে ফিরে আসে। এই প্রস্তাবে সবাই একমত হয়। (ফাতহুল বারি)

হিজরতের বছর থেকে সাল গণনার পরামর্শ হজরত আলী (রা.) দিয়েছিলেন বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে বর্ণিত রয়েছে। তাবেঈ সাইদ ইবনে মুসাইয়াব (রহ.) বলেন, ওমর (রা.) সবাইকে একত্র করে প্রশ্ন করেন কোন বছর থেকে সাল গণনা হবে? তখন হজরত আলী (রা.) বলেন, আল্লাহর রাসুল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) যে বছর হিজরত করেন এবং শিরকের ভূমি ত্যাগ করেন, ওই বছর থেকে হতে পারে। ওমর (রা.) তাই করেন। (হাকেম)

ইবনে সীরীনের বর্ণনায় বলা হয়েছে, মহররমকে হিজরি ক্যালেন্ডারের প্রথম মাস নির্ধারণ করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন হজরত ওসমান (রা.)। ওমর (রা.) তার পরামর্শ গ্রহণ করেন এবং সবাই এ ব্যাপারে একমত হয়।

তাই বলা যায়, হজরত ওমর, ওসমান ও আলীর (রা.) মতামত অনুযায়ী হিজরি ক্যালেন্ডারের প্রথম মাস এবং হিজরি বছরের সূচনাবর্ষ নির্ধারিত হয় এবং অন্যান্য সাহাবিরা সে ব্যাপারে একমত হন।

ইসলামের অনেক বিধান হিজরি ক্যালেন্ডারের তারিখ অনুযায়ী পালন করতে হয়। তাই মুসলমানদের জন্য হিজরি ক্যালেন্ডারের হিসাব রাখা, মাসের শুরুতে নতুন চাঁদ উঠেছে কি না দেখা, খবর রাখা গুরুত্বপূর্ণ। কোরআনে আল্লাহ বলেছেন,

یَسۡـَٔلُوۡنَكَ عَنِ الۡاَهِلَّۃِ قُلۡ هِیَ مَوَاقِیۡتُ لِلنَّاسِ وَ الۡحَجِّ
তারা তোমাকে নতুন চাঁদ সম্পর্কে প্রশ্ন করে। বল, তা মানুষের ও হজের জন্য সময় নির্ধারক। (সুরা বাকারা: ১৮৯)
আল্লাহর রাসুল (সালাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) নিজে চাঁদ দেখতেন এবং অন্যদেরও চাঁদ দেখতে উৎসাহিত করতেন যেন ইবাদতের সাথে সম্পৃক্ত চন্দ্রমাসগুলোর হিসাব রাখা যায়। হিজরি ক্যালেন্ডারের হিসাব রাখা ফরজে কেফায়া। প্রত্যেক দেশ ও সমাজের কিছু মানুষ হিজরি ক্যালেন্ডারের হিসাব সংরক্ষণ করলে তা সবার জন্য যথেষ্ট হবে। কেউ হিসাব না রাখলে সবাই গুনাহগার হবে।