• শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৭ ১৪৩০

  • || ১৯ শা'বান ১৪৪৫

আজকের পটুয়াখালী
ব্রেকিং:
নতুন নতুন অপরাধ দমনে পুলিশকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ পণ্যমূল্য সহনীয় রাখতে সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও নজরদারি চাই রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে পুলিশকে জনগণের বন্ধু হয়ে নিঃস্বার্থ সেবা দেয়ার নির্দেশ রাষ্ট্রপতি বিশ্বের সম্ভাব্য সকল স্থানে রপ্তানি বাজার ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা জরুরি গভীর সমুদ্র থেকে গ্যাস উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার পুলিশ জনগণের বন্ধু, সে কথা মাথায় রেখেই দায়িত্ব পালন করতে হবে অপরাধের ধরন বদলাচ্ছে, পুলিশকেও সেভাবে আধুনিক হতে হবে পুলিশ সপ্তাহ শুরু, উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী আইনশৃঙ্খলা সমুন্নত রাখতে পুলিশ নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে দেশপ্রেম ও পেশাদারিত্বের পরীক্ষায় বারবার উত্তীর্ণ হয়েছে পুলিশ জনগণের আস্থা অর্জন করলে ভোট পাবেন: জনপ্রতিনিধিদের প্রধানমন্ত্রী জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে উন্নয়ন কাজের ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছিলাম কেউ যেন ভুয়া ক্লিনিক-চিকিৎসকের দ্বারা প্রতারিত না হন: রাষ্ট্রপতি স্থানীয় সরকার বিভাগে বাজেট বরাদ্দ ৬ গুণ বেড়েছে: প্রধানমন্ত্রী স্থানীয় সরকারকে মাটি-মানুষের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়তে হবে শবে বরাতের মাহাত্ম্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের কাজে আত্মনিয়োগের আহ্বান সমাজের অসহায়, দরিদ্র মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসতে হবে দেশের মানুষের জন্য ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে হবে

যে গ্রামে বছরে ২২ কোটি টাকার নৌকা বিক্রি হয়

আজকের পটুয়াখালী

প্রকাশিত: ৯ ডিসেম্বর ২০২৩  

বছরের ৬ মাস জলমগ্ন থাকে সুনামগঞ্জের হাওর এলাকা। ফলে হাওর পাড়ের ১০ লাখ মানুষের চলাচলের প্রধান বাহন তখন নৌকা। সেই নৌকা তৈরি করতে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ব্যস্ত সময় পার করেন সুনামগঞ্জের সদর উপজেলার মাইজবাড়ি গ্রামের ৩ হাজার মানুষ। বছরে প্রায় ২২ কোটি টাকার নৌকা বিক্রি করেন তারা।

জানা যায়, জেলা শহর থেকে মাত্র ১২ কিলোমিটার দূরে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার কুরবান নগর ইউনিয়নের মাইজবাড়ি গ্রামটিতে কয়েক যুগ ধরে তৈরি হচ্ছে কাঠের নৌকা। গ্রামের প্রায় ৩ হাজারেরও বেশি মানুষের প্রধান পেশা এই নৌকা তৈরি। তবে নৌকা তৈরি করে ভাগ্য বদলায় না তাদের। নৌকা বিক্রির সব টাকা মহাজনের পেটে যাওয়ায় লাভবান হতে পারেন না এখানকার কারিগররা।

প্রতিদিন ভোরে হাতুড়ির ঠক ঠক শব্দে ঘুম ভাঙে এ গ্রামের শিশুদের। সূর্য ওঠার আগেই কারিগররা ব্যস্ত হয়ে ওঠেন নৌকা তৈরির কাজে। বছরের ১২ মাসই থাকে নৌকার কারিগরদের ব্যস্ততা।

এই গ্রামের একজন নৌকা তৈরির কারিগর মুসাইদ আলী। মহাজনের কাছ থেকে ধারদেনা করে দীর্ঘ ৪৫ বছর ধরে ছোট-বড় নৌকা তৈরি করে জীবন চালাচ্ছেন তিনি। তার নৌকাগুলো সুনামগঞ্জ-সিলেটসহ বিভিন্ন জেলার নদীতে কাজ করা শ্রমিকরা কিনে নিয়ে যান। সেইসঙ্গে পুকুরে মাছের খাবার দিতে, মাছ পরিবহনে, মাছ ধরতে ও বিভিন্ন খাল-বিল জলাশয়ে চলাচলের জন্য তার এসব নৌকা কিনে নিয়ে যান হাওর পাড়ের মানুষরা।

মুসাইদ আলী জানান, এই গ্রামের মানুষ নৌকা তৈরি ছাড়া আর কোনো কাজ করতে জানে না। আমিও ৪০ থেকে ৪৫ বছর ধরে নৌকা তৈরি করছি। তবে আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারি না।

শুধু মুসাইদ আলী নয়, এই গ্রামের প্রায় ৩ হাজার মানুষ নৌকা তৈরির কাজে নিয়োজিত। প্রতি মাসে এই গ্রাম থেকে ছোট-বড় প্রায় চার শতাধিক নৌকা বিক্রি করেন কারিগররা। প্রতিটি নৌকা ৪৫ হাজার থেকে শুরু করে ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করেন তারা।

গ্রামের নৌকার কারিগররা জানান, মাইজবাড়ি নৌকার গ্রাম হিসেবে পরিচিত। কিন্তু যুগের পর যুগ নৌকা তৈরি করেও ভাগ্য বদলায় না এ গ্রামের বাসিন্দাদের। সরকার যদি এই গ্রামের মানুষদের ব্যাংক লোন সহজ করে দিতো তাহলে তারা অনেক লাভবান হতে পারতেন।

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক রাশেদ ইকবাল জানান, হাওর জেলা সুনামগঞ্জে নৌকার কদর বেশি৷ এখানকার মাইজবাড়ি গ্রামে নৌকা তৈরি করা হয়। ওই গ্রামের বাসিন্দাদের ভাগ্য বদলের জন্য জেলা প্রশাসন ব্যাংক লোনসহ সকল ধরনের সহায়তা করবে।