• বুধবার ২৯ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪৩১

  • || ২০ জ্বিলকদ ১৪৪৫

আজকের পটুয়াখালী
ব্রেকিং:
বাংলাদেশ বিশ্ব শান্তি রক্ষায় এক অনন্য নাম : রাষ্ট্রপতি রাত ২টা পর্যন্ত নিজেই দুর্যোগ মনিটর করেছেন প্রধানমন্ত্রী রিমালে ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ দ্রুত মেরামতের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর বৃহস্পতিবার পটুয়াখালী যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী আবহাওয়া স্বাভাবিক হলে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় যাবেন শেখ হাসিনা ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়ার অগ্রযাত্রায় মার্কিন ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর জীবনীভিত্তিক ডকুমেন্টারি ‘কলকাতায় মুজিব’ অবলোকন ঢাকাবাসীকে সুন্দর জীবন উপহার দিতে কাজ করছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড় রেমাল : ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত জারি ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়: প্রধানমন্ত্রী সকালেই প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেবে রেমাল, আছড়ে পড়বে মধ্যরাতে ঘূর্ণিঝড় রেমাল : পায়রা ও মোংলা বন্দরে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত ঢাকায় কোনো বস্তি থাকবে না, দিনমজুররাও ফ্ল্যাটে থাকবে অগ্নিসংযোগকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারি বঙ্গবাজারে বিপণী বিতানসহ চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন নজরুলের বলিষ্ঠ লেখনী মানুষকে মুক্তি সংগ্রামে উদ্দীপ্ত করেছে জোটের শরিক দলগুলোকে সংগঠিত ও জনপ্রিয় করতে নির্দেশ সন্ধ্যায় ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে রেমাল বঙ্গবাজার বিপনী বিতানসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী কৃষিতে ফলন বাড়াতে অস্ট্রেলিয়ার প্রযুক্তি সহায়তা চান প্রধানমন্ত্রী

অসাংবিধানিকভাবে সরকার পরিবর্তনের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ-ফ্রান্স

আজকের পটুয়াখালী

প্রকাশিত: ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের পর বাংলাদেশ ও ফ্রান্স এক যৌথ বিবৃতি দিয়েছে। সোমবার (১১ সেপ্টেম্বর) এই যৌথ বিবৃতি জারি করা হয়। এতে উভয় দেশই সরকারের অসাংবিধানিক পরিবর্তন এবং যেকোনো দেশে বেআইনি সামরিক দখলের নিন্দা জানায়।

যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, প্রথমত অভিন্ন গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ, মানবাধিকারের প্রচার, টেকসই শান্তি ও টেকসই উন্নয়নের ওপর ভিত্তি করে বাংলাদেশ ও ফ্রান্সের মধ্যে গভীর বন্ধুত্ব রয়েছে। এই বন্ধুত্বের মূলে রয়েছে বহু স্তরবিশিষ্ট ঐতিহাসিক বন্ধন। এর মধ্যে ফ্রান্সের প্রাক্তন সংস্কৃতি মন্ত্রী আন্দ্রে মারলোর ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশকে সমর্থন দানের জন্য স্মরণীয় আহ্বান এবং পরে ১৯৭৩ সালের এপ্রিল মাসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে তার বৈঠক উল্লেখযোগ্য। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২০২১ সালের নভেম্বরে ফ্রান্স সফরকে কেন্দ্র করে তার আমন্ত্রণে ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ১০-১১ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশে দ্বিপাক্ষিক সফর করেন।

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে শক্তিশালী করার জন্য ঢাকায় সাক্ষাৎ করেছেন। তারা বিশ্ব শান্তি ও নিরাপত্তা, স্থিতিস্থাপকতা এবং কৌশলগত স্বায়ত্তশাসন সমর্থনে সমৃদ্ধি এবং মানুষ-কেন্দ্রিক সংযোগের মাধ্যমে একটি বিশ্বস্ত ও অর্থপূর্ণ অংশীদারত্ব গড়ে তোলার জন্য অভিন্ন প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন।

স্থিতিস্থাপকতা এবং সমৃদ্ধির জন্য অংশীদারত্ব বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স জলবায়ু জরুরি পরিস্থিতিতে দ্বিপাক্ষিক ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতার শক্তিতে বিশ্বাস করে। একটি নিউ গ্লোবাল ফাইন্যান্স প্যাক্টের জন্য প্যারিস সামিট অনুসরণ করে, যার সুপারিশ বাংলাদেশ অনুমোদন করে। বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স যৌথভাবে প্যারিস প্যাক্ট ফর পিপল অ্যান্ড দ্য প্ল্যানেটের দ্রুত বাস্তবায়ন চায়। এ জন্য উন্নয়ন জীববৈচিত্র্য এবং জলবায়ুর জন্য সব উৎস থেকে অতিরিক্ত অর্থায়ন সংগ্রহের আহ্বান জানায়।

উভয় দেশই চারটি মূল নীতি অনুসরণ করে বৈশ্বিক অর্থায়নের স্থাপত্যের আরও অন্তর্ভুক্তিমূলক শাসনের প্রয়োজনীয়তা স্বীকার করে। সেগুলো হলো- দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে লড়াই এবং গ্রহের সংরক্ষণের মধ্যে কোনো দেশকে বেছে নিতে হবে না তা নিশ্চিত করা। উত্তরণ কৌশলের দেশের মালিকানা নিশ্চিত করা। দুর্বল অর্থনীতিকে সমর্থন করার জন্য উন্নত এবং অনুমানযোগ্য সংস্থানসহ একটি আর্থিক উদ্দীপনা প্রদান করা। এবং নেট-শূন্য এবং প্রকৃতি-ইতিবাচক বিশ্ব অর্জনের জন্য অতিরিক্ত ব্যক্তিগত পুঁজি সংগ্রহ করা।

বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স বিশ্বাস করে যে উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য জলবায়ু অর্থের অধিকার সহজ করার জন্য বৈশ্বিক প্রচেষ্টা আরও ত্বরান্বিত করা উচিত। জলবায়ু ঝুঁকির বিরুদ্ধে ভি২০-জি৭ গ্লোবাল শিল্ডের মাধ্যমে বাংলাদেশ একটি অগ্রাধিকার দেশ। পাশাপাশি জলবায়ু সহনশীল ঋণ ধারাগুলের আরও বাস্তবায়নের মাধ্যমে ফ্রান্স ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে চরম সংকটের মুখোমুখি হতে এবং ক্ষতি ও ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় সহায়তা করা অব্যাহত রাখবে।

ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ উন্নয়নশীল দেশগুলোকে সহায়তা করার জন্য নতুন তহবিল ব্যবস্থার কার্যকর করতে বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স সমর্থন করে।

ফ্রান্স ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের আকাঙ্ক্ষাকে সমর্থন করার জন্য তার ইচ্ছাকে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করেছে। বিশেষ করে দুর্বলতার ধারণার ব্যবহার প্রচার করে এবং বহুপাক্ষিক উন্নয়ন ব্যাঙ্কসহ সব প্রাসঙ্গিক ফোরামে স্থিতিস্থাপকতা এবং সমৃদ্ধির দিকে এটিকে সূক্ষ্ম আহ্বানের মাধ্যমে।

বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স এবছর দুবাইতে ফলাফল ভিত্তিক কপ২৮ নিশ্চিত করতে তাদের প্রচেষ্টায় যোগ দিতে সম্মত হয়েছে। তারা নবায়নযোগ্য এবং পরিচ্ছন্ন শক্তিতে বিনিয়োগের মাধ্যমে জলবায়ু সহনশীল বিশ্বে একটি জরুরি রূপান্তরের দিকে কপ২৮-এ একটি কোর্স চার্ট করার প্রত্যাশা বিনিময় করে। দেশ দুটি জীবাশ্ম জ্বালানি থেকে দূরে বিশ্বব্যাপী শক্তির স্থানান্তরকে ত্বরান্বিত করার প্রয়োজনীয়তা পুনর্ব্যক্ত করে। একই সঙ্গে বিশ্বজুড়ে নবায়নযোগ্য শক্তি উৎপাদন এবং শক্তি দক্ষতার জন্য উচ্চাভিলাষী লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ এবং পূরণ করার প্রয়োজনীয়তা পুনর্ব্যক্ত করে।

ফ্রান্স ২০৫০ সালের মধ্যে কার্বন নিরপেক্ষতা অর্জন এবং জীবাশ্ম জ্বালানির ওপর নির্ভরতা থেকে সরে যাওয়ার লক্ষ্য পুনর্ব্যক্ত করে। যেখানে বাংলাদেশ সাশ্রয়ী মূল্যের অর্থ ও প্রযুক্তি গ্রহণের মাধ্যমে শক্তি পরিবর্তনের প্রচেষ্টাকে সমর্থন করতে একটি টেকসই সহযোগিতামূলক পদ্ধতির প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেয়।

বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স পর্যবেক্ষণ করেছে যে জলবায়ু পরিবর্তন এবং সরবরাহ শৃঙ্খল বিঘ্নিত হওয়ার কারণে বিশ্বব্যাপী খাদ্য সার্বভৌমত্ব, খাদ্য নিরাপত্তা এবং পুষ্টির ওপর বিপর্যয়কর প্রভাব পড়ছে।

নিয়মিত সংলাপের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও ফ্রান্স খাদ্য নিরাপত্তার সমর্থনে টেকসই ও স্থিতিস্থাপক খাদ্য ও কৃষি ব্যবস্থায় সহযোগিতা জোরদার করতে সম্মত হয়েছে। এ বিষয়ে ফ্রান্সের নেতৃত্বে ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার রেজিলিয়েন্স মিশন উদ্যোগে বাংলাদেশের যোগদানের প্রশংসা করে ফ্রান্স।

বাংলাদেশ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ফ্রান্সের উন্নয়ন সহযোগিতা সহায়তার গভীর প্রশংসা করে। যেমন পানি শোধন থেকে পরিচ্ছন্ন শক্তি, নগর উন্নয়ন থেকে অন্তর্ভুক্তিমূলক স্বাস্থ্য পরিষেবা, জলবায়ু-ভিত্তিক সমন্বিত প্রকল্পগুলো। বাংলাদেশের ৮৬টিরও বেশি পৌরসভার নগর উন্নয়নে সহায়তার জন্য বাংলাদেশ সরকার এবং এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের পাশাপাশি ফ্রেঞ্চ এজেন্সি ফর ডেভেলপমেন্টের সঙ্গে ২০০ মিলিয়ন ডলারের অর্থায়ন চুক্তি সই হয়েছে।

বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স বন ও জলাভূমি দ্বারা প্রদত্ত গুরুত্বপূর্ণ বাস্তুতন্ত্র পরিষেবার গুরুত্বের ওপর জোর দেয়। একই সঙ্গে বাংলাদেশের সমৃদ্ধ ম্যানগ্রোভগুলো সংরক্ষণ ও সম্প্রসারণের জন্য সহযোগিতাকে আরও গভীর করার প্রতিশ্রুতি দেয়। যা জীববৈচিত্র্য এবং কার্বন উভয়েরই অত্যাবশ্যক ভাণ্ডার। ফ্রান্স দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলে ম্যানগ্রোভ বন এবং সেখানকার জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে বাংলাদেশের অব্যাহত প্রচেষ্টার প্রশংসা করে।

২০২৫ সালে নিসে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ফ্রান্স ও কোস্টারিকার যৌথ সভাপতিত্বে জাতিসংঘের মহাসাগর বিষয়ক সম্মেলনের আগে বাংলাদেশ ও ফ্রান্স তাদের যৌথ প্রচেষ্টা এগিয়ে নিতেও বদ্ধপরিকর। বাংলাদেশ ফ্রান্সকে টেকসই পদ্ধতিতে বঙ্গোপসাগরে সামুদ্রিক সম্পদের ব্যবহারে যৌথ উদ্যোগে অন্বেষণের আমন্ত্রণ জানিয়েছে।

দেশ দুটি ২০২৩ সালের আগস্টে জাতীয় এখতিয়ারের বাইরে এলাকার সামুদ্রিক জৈবিক বৈচিত্র্যের সংরক্ষণ এবং টেকসই ব্যবহারের বিষয়ে আনক্লোসের অধীনে চুক্তি গ্রহণকে স্বাগত জানায়। উভয় দেশই দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্প্রসারণ এবং রেলওয়ে খাতসহ বাংলাদেশে মানসম্মত ও স্থিতিস্থাপক অবকাঠামো উন্নয়নে বিনিয়োগের সম্ভাবনা অন্বেষণে তাদের আগ্রহের কথা পুনর্ব্যক্ত করে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এবং ফরাসি প্রেসিডেন্ট আশা প্রকাশ করেন যে ২৩ এবং ২৫ অক্টোবর ২০২৩ সালে প্যারিস এবং টুলুজে অনুষ্ঠিতব্য বাংলাদেশ-ফ্রান্স বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলন দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্পর্কের ক্ষেত্রে নতুন গতি সঞ্চার করবে।

যৌথ প্রবৃদ্ধি এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশের দেওয়া অর্থনৈতিক সম্ভাবনার প্রতি ফ্রান্স তার আস্থা প্রকাশ করেছে। তারা তাদের অর্থনৈতিক অংশীদারত্বের গভীরতার কথা স্মরণ করে। শিল্প থেকে পরিষেবা পর্যন্ত সব সেক্টরে বিস্তৃত এবং ব্যবসা থেকে ব্যবসায় সহযোগিতার মাধ্যমে এটিকে আরও গভীর ও প্রসারিত করতে ইচ্ছা প্রকাশ করে।

ফ্রান্স ও বাংলাদেশের শ্রম খাতে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা (২০২১-২০২৬) গ্রহণের প্রশংসা করে। এছাড়া সাধারণীকৃত স্কিম অব প্রেফারেন্সের অধীনে একটি মসৃণ এবং টেকসই উত্তরণ সহজ করতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের কৌশলগত স্বায়ত্তশাসন, শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য অংশীদারত্ব বাস্তবায়নে জোর দেয়। একই সঙ্গে বাংলাদেশের অর্থনীতির বহুমুখীকরণের গুরুত্বের ওপর জোর দেয়।

বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স আন্তর্জাতিক আইন এবং জাতিসংঘ সনদের প্রতি তাদের অটল প্রতিশ্রুতি, বিশেষ করে সংঘাতের শান্তিপূর্ণ সমাধানের নীতি এবং বহুপাক্ষিকতাবাদে অবিচল বিশ্বাসকে পুনর্ব্যক্ত করে।

সেক্ষেত্রে ফ্রান্স ও বাংলাদেশ সব জাতির আঞ্চলিক অখণ্ডতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতি তাদের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করে। দেশ দুটি নিশ্চিত করে যে ইউক্রেনের যুদ্ধ আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন, বিশেষ করে জাতিসংঘের সনদের লঙ্ঘন এবং নিয়ম-ভিত্তিক আন্তর্জাতিক ব্যবস্থার জন্য একটি গুরুতর হুমকি।

দেশ দুটি জাতিসংঘের সনদের নীতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ একটি ন্যায্য ও দীর্ঘস্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য সব প্রচেষ্টার প্রতি তাদের সমর্থন প্রকাশ করে। তারা যুদ্ধের বৈশ্বিক পরিণতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে। তা আর্থিক, অর্থনৈতিক এবং খাদ্য ও শক্তি নিরাপত্তার ক্ষেত্রেই হোক না কেন- সব জাতির ওপর প্রভাব ফেলে। এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় একসঙ্গে জড়িত হওয়ার জন্য প্রস্তুতির কথা জানায় বাংলাদেশ ও ফ্রান্স।

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা ও শান্তি বিনির্মাণ প্রক্রিয়ায় বিশেষ করে আফ্রিকায় বাংলাদেশের অগ্রণী অবদানের প্রশংসা করে ফ্রান্স। বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের প্রতি তাদের সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করে। মিশনের আদেশ এবং প্রাসঙ্গিক প্রেক্ষাপটে তাদের বাস্তবায়নের বিষয়ে নিয়মিত পরামর্শ করতে ইচ্ছা প্রকাশ করে দেশ দুটি।

উভয় দেশই সরকারের অসাংবিধানিক পরিবর্তন এবং যেকোনো দেশে বেআইনি সামরিক দখলের নিন্দা করে। একই সঙ্গে সংঘাত, সহিংসতা এবং নৃশংস অপরাধের কারণে বাস্তুচ্যুতদের জন্য জরুরি এবং নিরবচ্ছিন্ন মানবিক সহায়তার আহ্বান জানায়।

কয়েক বছর ধরে মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় ও মানবিক সহায়তা প্রদানে বাংলাদেশের উদারতার প্রশংসা করেছে ফ্রান্স।

উভয় দেশই আন্তর্জাতিক এজেন্ডায় রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন এবং পরিস্থিতি বজায় রাখার বিষয়ে প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করে। পাশাপাশি মিয়ানমারের অভ্যন্তরে এমন পরিস্থিতি তৈরি করার প্রয়োজন মনে করে যাতে রোহিঙ্গারা স্বেচ্ছায়, নিরাপদ, মর্যাদাপূর্ণ এবং টেকসইভাবে তাদের পৈতৃক জন্মভূমিতে দ্রুত প্রত্যাবর্তন করতে পারে।

ন্যায়বিচার এবং জবাবদিহি নিশ্চিত করার আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টার সমর্থনে ফ্রান্স আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের সামনে গাম্বিয়া বনাম মিয়ানমার মামলায় অন্যান্য অংশীদারদের সঙ্গে হস্তক্ষেপ করার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে।

রোহিঙ্গা মানবিক সংকট মোকাবিলায় জাতিসংঘের যৌথ প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনার জন্য পর্যাপ্ত আন্তর্জাতিক সমর্থন জোগাড় করতে ফ্রান্সের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ। এই প্রেক্ষাপটে, ফ্রান্স বাংলাদেশের রোহিঙ্গা শিবিরে বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির কার্যক্রমে অতিরিক্ত এক মিলিয়ন ইউরোর অনুদান ঘোষণা করেছে।

ভারত মহাসাগরের দুটি আবাসিক শক্তি হিসেবে বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স একটি মুক্ত, উন্মুক্ত, অন্তর্ভুক্তিমূলক, নিরাপদ এবং শান্তিপূর্ণ ইন্দো-প্যাসিফিকের তাদের দৃষ্টিভঙ্গি পুনর্ব্যক্ত করে।

বাংলাদেশ ও ফ্রান্স ইন্ডিয়ান ওশান রিম অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যদের মধ্যে সহযোগিতাকে আরও গভীর করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। সংস্থাটির বাংলাদেশের সভাপতিত্বের প্রদত্ত অনুপ্রেরণার ওপর ভিত্তি করে এবং এই অঞ্চলের অন্যান্য সমমনা দেশগুলোর সঙ্গে সহযোগিতা করতে তাদের ইচ্ছুক।

উভয় দেশই এই অঞ্চলটিকে অবৈধ যানবাহন, অবৈধ মাছ ধরা এবং বাণিজ্য ও নৌ চলাচলের স্বাধীনতার পক্ষে তাদের অভিন্ন প্রচেষ্টা প্রকাশ করে। তারা ২০২৩ সালের জুলাই মাসে ভারত মহাসাগরে মোতায়েন একটি ফরাসি ফ্রিগেট এফএস সারকফের চট্টগ্রামে বন্দর কলটি স্মরণ করে।

বাংলাদেশ ও ফ্রান্স ইইউ-বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউরস বাস্তবায়নের অগ্রগতিও নোট করে। যাতে থাকার অনুমতি ছাড়াই অবস্থান করা ব্যক্তিদের শনাক্ত করা এবং প্রত্যাবর্তন করা হয়। একই সঙ্গে মানুষের চোরাচালানসহ অনিয়মিত অভিবাসন সম্পর্কিত চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সহযোগিতা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়।

বাংলাদেশ ও ফ্রান্স ২০২১ সালের নভেম্বরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফ্রান্স সফরের সময় দুই সরকারের মধ্যে সই হওয়া প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে সহযোগিতা ও বিনিময়ের অভিপ্রায় পত্র প্রত্যাহার করে। এসময় নৌবাহিনীকে কেন্দ্র করে প্রতিরক্ষা সহযোগিতা বাড়াতে বাংলাদেশের কৌশলগত স্বায়ত্তশাসনের সমর্থনে যন্ত্রপাতি এবং প্রযুক্তি হস্তান্তরসহ আকাশ ও স্থল শক্তি বাড়াতে তাদের ইচ্ছার কথা জানায়।

উভয় দেশই বিশেষ করে ক্রিমারিও প্রোগ্রামের অধীনে সামুদ্রিক ডোমেইন সচেতনতার ক্ষেত্রে সহযোগিতাসহ অপ্রচলিত নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়ে সহযোগিতা জোরদারে সমর্থন করে।

বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স সার্বভৌমত্ব এবং কৌশলগত স্বায়ত্তশাসনকে একটি স্থিতিশীল, বহু-মেরু বিশ্বের জন্য মূল নীতি হিসেবে বিবেচনা করে। উভয় দেশ তাই কৌশলগত খাতে বর্ধিত সহযোগিতাকে স্বাগত জানায়।

ফ্রান্স এয়ারবাস থেকে প্লেন কেনার বিষয়ে তার প্রতিশ্রুতির জন্য বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানায়। দুই দেশ বাংলাদেশের সব বিমানবন্দরে উন্নত এয়ার ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় অব্যাহত সহযোগিতার গুরুত্বের ওপরও জোর দেয়।

একইভাবে, ২০৪১ সালের একটি স্মার্ট বাংলাদেশের রূপকল্পে অবদান হিসেবে দুই দেশ এয়ারবাস ডিএস এবং বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিএসসিএল) মধ্যে মহাকাশ সার্বভৌম পৃথিবী-পর্যবেক্ষণ স্যাটেলাইট অংশীদারত্বের চুক্তিকে স্বাগত জানায়। যা একটি মহাকাশ জাতি হিসেবে বাংলাদেশের অবস্থানকে শক্তিশালী করবে।

বাংলাদেশ ও ফ্রান্স কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসহ আইসিটি ও ডিজিটাল প্রযুক্তির ক্ষেত্রে সহযোগিতা করতে সম্মত হয়েছে। এই বিষয়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সংক্রান্ত গ্লোবাল পার্টনারশিপের মতো উদ্যোগে যোগ দেওয়ার জন্য ফ্রান্স বাংলাদেশকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে।

দেশ দুটি আন্তর্জাতিক আইন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত একটি বৈশ্বিক, উন্মুক্ত এবং নিরাপদ সাইবারস্পেসের জন্য সাইবার নিরাপত্তা সমস্যাগুলির একটি উন্নত ব্যবস্থাপনার দিকে তাদের প্রচেষ্টায় যোগদানের গুরুত্বের ওপর জোর দেয়। ফ্রান্স সাইবার নিরাপত্তার হুমকি মোকাবিলায় বাংলাদেশকে প্রযুক্তিগত সহায়তা শনাক্ত করার জন্য কাজ করবে। এছাড়া জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে গ্লোবাল ডিজিটাল কমপ্যাক্টে একসঙ্গে কাজ করবে।

বাংলাদেশ ও ফ্রান্স প্রত্নতত্ত্বের ক্ষেত্রে, বিশেষ করে মহাস্থানগড় প্রত্নতাত্ত্বিক মিশনের মাধ্যমে তাদের দীর্ঘস্থায়ী সহযোগিতার প্রশংসা করে। পাশাপাশি অন্যান্য সম্ভাব্য খনন ও পুনরুদ্ধার মিশনের বিষয়ে আলোচনা করতে সম্মত হয়।

উভয় দেশই তাদের সাংস্কৃতিক সহযোগিতার আরও উন্নয়নে আগ্রহের কথা স্বীকার করে। সেক্ষেত্রে ঢাকা ও চট্টগ্রামে জোট ফ্রাঁওয়েসের প্রধান ভূমিকার কথা উল্লেখ করে। উভয় দেশই বহুভাষিকতার গুরুত্ব স্বীকার করে এবং বাংলাদেশে ফরাসি ভাষা এবং ফ্রান্সে বাংলা ভাষার প্রসারে অঙ্গীকারবদ্ধ।

বাংলাদেশের তরুণ কূটনীতিকদের জন্য ফ্রান্সে কূটনৈতিক ও ফরাসি ভাষার প্রশিক্ষণ দিতে সম্মত হয়েছে ফ্রান্স। বাংলাদেশ ও ফ্রান্স শান্তির সংস্কৃতির উন্নয়নসহ ইউনেসকোর মধ্যে তাদের পারস্পরিক সহযোগিতা অব্যাহত রাখতে সম্মত হয়েছে।

বাংলাদেশ এবং ফ্রান্স বৈজ্ঞানিক, প্রযুক্তিগত ও গবেষণা সহযোগিতা জোরদার করতে চায়। এই গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে গবেষণা সহযোগিতা জোরদার করার উপায় হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর ওশান গভর্নেন্সে একজন ফরাসি সমুদ্রবিজ্ঞান বিশেষজ্ঞ নিয়োগকে স্বাগত জানায়।

উভয় দেশই স্থাপত্য, প্রকৌশল, চিকিৎসা, সমুদ্রবিদ্যা, জলবায়ু কর্ম, টেকসই পর্যটন, উন্নয়ন অধ্যয়ন এবং সিসমোলজির মতো অগ্রাধিকার বিষয়গুলিতে ফোকাস করে। একই সঙ্গে বিভিন্ন ক্ষেত্রে উচ্চ শিক্ষাগত এবং স্নাতকোত্তর স্তরে মানবসম্পদকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আরও বেশি শিক্ষার্থী, শিক্ষক এবং শিক্ষাবিদ বিনিময়ক উৎসাহিত করতে তাদের ইচ্ছুার পুনরাবৃত্তি করে।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এবং ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট শান্তি, সমৃদ্ধি ও জনগণের জন্য অংশীদারত্বকে কৌশলগত পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে কাজ করতে সম্মত হয়েছেন।