• শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৭ ১৪৩০

  • || ১৯ শা'বান ১৪৪৫

আজকের পটুয়াখালী
ব্রেকিং:
নতুন নতুন অপরাধ দমনে পুলিশকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ পণ্যমূল্য সহনীয় রাখতে সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও নজরদারি চাই রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে পুলিশকে জনগণের বন্ধু হয়ে নিঃস্বার্থ সেবা দেয়ার নির্দেশ রাষ্ট্রপতি বিশ্বের সম্ভাব্য সকল স্থানে রপ্তানি বাজার ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা জরুরি গভীর সমুদ্র থেকে গ্যাস উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার পুলিশ জনগণের বন্ধু, সে কথা মাথায় রেখেই দায়িত্ব পালন করতে হবে অপরাধের ধরন বদলাচ্ছে, পুলিশকেও সেভাবে আধুনিক হতে হবে পুলিশ সপ্তাহ শুরু, উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী আইনশৃঙ্খলা সমুন্নত রাখতে পুলিশ নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে দেশপ্রেম ও পেশাদারিত্বের পরীক্ষায় বারবার উত্তীর্ণ হয়েছে পুলিশ জনগণের আস্থা অর্জন করলে ভোট পাবেন: জনপ্রতিনিধিদের প্রধানমন্ত্রী জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে উন্নয়ন কাজের ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছিলাম কেউ যেন ভুয়া ক্লিনিক-চিকিৎসকের দ্বারা প্রতারিত না হন: রাষ্ট্রপতি স্থানীয় সরকার বিভাগে বাজেট বরাদ্দ ৬ গুণ বেড়েছে: প্রধানমন্ত্রী স্থানীয় সরকারকে মাটি-মানুষের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়তে হবে শবে বরাতের মাহাত্ম্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের কাজে আত্মনিয়োগের আহ্বান সমাজের অসহায়, দরিদ্র মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসতে হবে দেশের মানুষের জন্য ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে হবে

১৯৭১ এর ৮ ডিসেম্বর

গৌরবের বিজয় অতি সন্নিকটে

আজকের পটুয়াখালী

প্রকাশিত: ৮ ডিসেম্বর ২০২৩  

১৯৭১ সালে সংঘটিত মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে ৮ ডিসেম্বর তাৎপর্যপূর্ণ একটি দিন। এই দিনে মেহেরপুরের মুজিবনগর থেকে দেওয়া দেওয়া এক বেতার ভাষণে জাতির উদ্দেশে তৎকালীন প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ বলেন, 'স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ এখন একটি প্রতিষ্ঠিত সত্য। পাকিস্তানি হানাদাররা এখন প্রাণ বাঁচাতে পালাচ্ছে। বাংলাদেশে পাকিস্তানিদের পরাজয় এখন কেবল সময়ের অপেক্ষা। আজ আমাদের সবাইকে একসঙ্গে দাঁড়িয়ে শত্রুর ওপর শেষ আঘাত হানতে হবে এবং বাংলাদেশের মাটিতে তাদের কবর রচনা করতে হবে। দেশ যখন আমাদের আহ্বান জানাচ্ছে, তখন সে আহ্বানে যেন আমরা সাড়া দিতে পারি। আগামীকাল যেন কখনো আমাদের অপবাদ দিতে না পারে যে, আমরা আমাদের কর্তব্য পালন করিনি।'

এই ভাষণে তাজউদ্দীন আহমদ নিরাপত্তা পরিষদে ভেটো দেওয়ার জন্য সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

এই দিনেই বাঙালিরা বুঝে যায় জয় অতি সন্নিকটে। কারণ অনেক ইতোমধ্যেই শত্রুমুক্ত, লাল-সবুজ পতাকা উড়ছে স্থানে স্থানে। একের পর এক হানাদারমুক্ত হচ্ছে জেলা। তখন দিশেহারা হানাদার বাহিনী। আকাশ-নৌ ও স্থলে পরাক্রান্ত পাকসৈন্য। সুশিক্ষিত ও আধুনিক সমরসজ্জায় সজ্জিত হানাদাররা বাংলার কৃষক-শ্রমিক মেহনতি মানুষের সমন্বয়ে গড়ে ওঠা মুক্তিবাহিনীর কাছে পর্যুদস্ত। জীবন বাঁচাতে পালাচ্ছে হানাদারদের সহযোগী রাজাকার, আলবদর, আলশাসরা।

রক্তক্ষয়ী একাত্তরের এদিনে আকাশ বাণীর মাধ্যমে ভারতীয় সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল মানেক শ’ বাংলাদেশের দখলদার পাকিস্তানি বাহিনীকে আত্মসমর্পণের আহ্বান জানান। অন্যদিকে একের পর এক জেলা হানাদারমুক্ত করে বিজয় কেতন উড়িয়ে চারদিক থেকে ঢাকায় আক্রমণ করার প্রস্তুতি নিয়েছে মিত্রবাহিনী ও মুক্তিবাহিনী।

৮ ডিসেম্বর থেকে সারাদেশেই পাক হানাদাররা বিচ্ছিন্ন ও অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। লাখ লাখ প্রাণ আর মা-বোনের সম্মান বলীদানে একটি নতুন রাষ্ট্রের আলো ছড়াতে শুরু করে। স্বাধীন হয়ে উঠতে শুরু করে বাংলার প্রান্তর। বিজয়ের স্বাদ পেতে বাংলাদেশের মানুষ।

একাত্তরের ৮ ডিসেম্বর  সকালে মিত্রপক্ষের সামরিক নেতারা পূর্ব রণাঙ্গনের সমগ্র পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে দেখলেন, তাদের প্রথম লক্ষ্য সফল হয়েছে। বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাকিস্তানি বাহিনী বিচ্ছিন্ন ও অবরুদ্ধ। পালানোর পথ নেই। তাদের "ভাতে মারা হয়েছে, পানিতে মারা হয়েছে"।

তৎকালীন সময়ে দেশের দক্ষিণে পাকিস্তানি বাহিনীর একটি অংশ আটকা পড়েছে। উত্তরে গোটা পাকিস্তানি বাহিনীও ব্রহ্মপুত্র ও পদ্মার মধ্যবর্তী তিন-চারটি অঞ্চলে অবরুদ্ধ।

প্রায় একটি ব্রিগেড হিলির কাছে অবরুদ্ধ। আর একটি ব্রিগেড আটকা পড়ে জামালপুরে। সিলেটের দিকে যে বাহিনীটা ছিল, কার্যত তা খতম হয়ে গেছে। ময়নামতি ক্যান্টনমেন্টে অবরুদ্ধ আরেকটি ব্রিগেড। আরেকটি পাকিস্তানি বাহিনী অবরুদ্ধ চট্টগ্রামে। একটির সঙ্গে অন্যটির যোগ দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। ঢাকার দিকে পিছু হটাও কারও পক্ষে সম্ভব নয়।

সার্বিক এই চিত্র অবলোকন করে মিত্রবাহিনী তখন তিনটি ব্যবস্থা নিলেন। এক. গোটা পাকিস্তানি বাহিনীকে আত্মসমর্পণ করতে বলা হলো। দুই. জেনারেল জগজিৎ সিংকে বলা হলো তার তিন কলাম সৈন্য দ্রুত ঢাকার দিকে এগিয়ে নিতে এবং তিন. একটি ব্রিগেডকে হালুয়াঘাটের দিক থেকে ময়মনসিংহের দিকে নিয়ে আসা হলো।

যুদ্ধের শুরুতেই ভারতীয় বাহিনীর প্রধান জেনারেল মানেক শ’ বাংলাদেশের দখলদার পাকিস্তানি বাহিনীর উদ্দেশে আত্মসমর্পণের আহ্বান জানান। ৮ ডিসেম্বর আবার তার সেই আহ্বান আকাশবাণী থেকে প্রচার করা হয়। জেনারেল মানেক শ’ পাকিস্তানিদের আত্মসমর্পণের কথা বললেন এবং সঙ্গে সঙ্গে এ আশ্বাস দিলেন- আত্মসমর্পণ করলে পাকিস্তানি বাহিনীর প্রতি জেনেভা কনভেশনের রীতি অনুযায়ী সম্মানজনক ব্যবহার করা হবে।

ভারতীয় সেনাবাহিনী বললেন, ‘আমরা জানি আপনারা (পাকিস্তানি বাহিনী) পালানোর জন্য বরিশাল আর নারায়ণগঞ্জের কয়েক জায়গায় জড়ো হচ্ছেন। কিন্তু আমি সমুদ্রপথে পালানোর সব পথ বন্ধ করে দিয়েছি। এ জন্য নৌবাহিনীকে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এখনো যদি আপনারা আমার পরামর্শ না শোনেন এবং মিত্রবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ না করেন, তাহলে নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে কেউ আপনাদের রক্ষা করতে পারবে না।’

ভারতীয় সেনাবাহিনী এমন হুঁশিয়ারি শুনে পর্যুদস্ত পাকি হানাদারদের মনোবল আরও ভেঙে পড়ে। কোথাও প্রতিরোধ তো দূরের কথা পালানোর পথ খুঁজতেও মরিয়া তারা। বাংলাদেশের স্বাধীনতা নিশ্চিত। আত্মসমর্পণ সময়ের ব্যাপার মাত্র। এটা বুঝতে বাকি রইল না হানাদার বাহিনীর নেতাদের। তাই আত্মসমর্পণের আগে রাজাকার-আলবদরদের নিয়ে মরণকামড় দিতে ঘৃণ্য ষড়যন্ত্র আঁটতে থাকে পাকি জেনারেলরা।

বাংলাদেশ যুদ্ধ জয়ের দ্বারপ্রান্তে। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ অবিলম্বে যুদ্ধ বিরতি ও সৈন্য প্রত্যাহারের জন্য ভারত-পাকিস্তানের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রস্তাব পাস করে। সাধারণ পরিষদে ভারতীয় প্রতিনিধি সমর সেন বলেন, পাকিস্তানকে অবশ্যই বাংলাদেশকে স্বীকার করে নিতে হবে। উপমহাদেশের শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য তিনি পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মুক্তিও দাবি করেন।

এদিন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ এক বেতার ভাষণে বলেন, নবজাত স্বাধীন বাংলাদেশের আদর্শ হচ্ছে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান, জোট নিরপেক্ষতা এবং সব ধরনের ঔপনিবেশিকতা ও সাম্রাজ্যবাদের বিরোধিতা করা। আমরা গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা এবং ধর্মনিরক্ষে ও সমাজতন্ত্রী জীবন গঠনে অভিলাষী। ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক পারস্পরিক বন্ধুত্ব ও মৈত্রীর দৃঢ় ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত হবে।